একদিনেই তাপমাত্রা কমল ৩ ডিগ্রির বেশি, বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা

তাপমাত্রা কমার পাশাপাশি মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ শুরু হয়েছে। একদিনের ব্যবধানে দেশে তাপমাত্রা কমেছে তিন ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, আগামী কয়েকদিনে তাপমাত্রা আরও কমে যাবে এবং দেশের উত্তরাঞ্চলে যে শৈত্যপ্রবাহ তা বিস্তার লাভ করবে।

আজ বুধবার (১৩ জানুয়ারি) আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে।

মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং এটি উত্তরাঞ্চলে দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে রাত ও দিনের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে।

আর আগামী তিনদিনে রাতের তাপমাত্রা আরও কমতে পারে। আর রাজশাহী, পাবনা, নওগাঁ, দিনাজপুর, সৈয়দপুর ও কুড়িগ্রামে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত ও বিস্তার লাভ করতে পারে।

ভোর ৬টায় নওগাঁর বদলগাছিতে ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়, আগের দিন যা ছিল ১১ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়াও ঈশ্বরদীতে ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, দিনাজপুরে ৯ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, রাজারহাটে ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

বিভাগীয় শহর ঢাকায় ১৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, রাজশাহীতে ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ময়মনসিংহে ১২ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, চট্টগ্রামে ১৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সিলেটে ১৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, রংপুরে ১১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, খুলনায় ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বরিশালে ১৩ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করতে পেরেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

দীর্ঘ মেয়াদী পূর্বাভাসে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, জানুয়ারি মাসে সামগ্রিকভাবে দেশে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এ মাসে দেশে দুয়েকটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এর মধ্যে একটি তীব্র (৪-৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস) শৈত্যপ্রবাহ হতে পারে।আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক আবহাওয়াবিদ বলেন, জানুয়ারির ১৫-১৬ তারিখের দিকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত শীতকাল। এসময়ের মধ্যে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*